প্রচ্ছদ / লীড নিউজ / প্রবাসী তরুণীকে ধর্ষনের অভিযোাগে ব্যবসায়ী সেলিমের বিরুদ্ধে মামলা
home-ad-620-x-90

প্রবাসী তরুণীকে ধর্ষনের অভিযোাগে ব্যবসায়ী সেলিমের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : বিয়ের নাটক সাজিয়ে প্রবাসী এক তরুনীকে দিনের পর দিন ধর্ষন করেছে সাভার পৌর এলাকার ব্যাংক টাউন মহল্লার বাসিন্দা ঝুট ব্যবসায়ী প্রতারক সেলিমে আহম্মেদ। এঘটনায় সেলিম ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলার আসামীরা হচ্ছে- সাভারের ব্যাংক টাউন এলাকার মৃত. আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে প্রতারক সেলিম আহম্মেদ (৪০), তার সহযোগী উত্তর যাত্রাবাড়ী এলাকার মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে আব্দুল হান্নান (৩৫) ও সাভারের রাজাশন মন্ডলপাড়া এলাকার আবু বক্কর সিদ্দিক (৩৪)।

২৬ বছর বয়সী মালয়েশিয়া প্রবাসী তরুণী মামলায় উল্লেখ করেছেন, মালয়েশিয়ায় কাজ করার সুবাদে সেখানে পরিচয় হয় সাভারের ব্যবসায়ী সেলিম আহম্মেদের সাথে। সেখান থেকেই সুসর্ম্পক গড়ে উঠে। ধীরে ধীরে সর্ম্পক গভীর হলে সে আমাকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে আসে।

ওই তরুনী জানান, গতবছরের ৭ সেপ্টেম্বর দেশে আসলে বিমানবন্দরে সেলিম ও তার সহযোগী আবুবক্কর সিদ্দিক আনতে যায়। দুই দিন ঢাকার বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে ৯ সেপ্টেম্বর তাকে তার গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। পরে সেলিম তাকে বিয়ের করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গ্রামের বাড়ি থেকে নিয়ে আসে। ওই দিনই সেলিম তার দুই সহযোগীর সহায়তায় বিয়ের মিথ্যা নাটক সাজিয়ে একজন হুজুর এনে বিয়ে করে কাগজে স্বাক্ষর নেয়।

গত বছরের ১১ সেপ্টেম্বর ওই তরুনীর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে ঘুরে আসে। এরপর সেলিম ও ওই তরুনী স্বামী-স্ত্রী হিসেবে প্রায় এক বছল বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে বসবাস করতে থাকে। প্রায় এক বছর পর ওই তরুনী কাবিন নামা কাগজ চাইলে সেলিম নানা টালবাহানা শুরু করে।

একপর্যায়ে তার কথিত স্বামী সেলিম তাকে জানায়, বিয়েতে কাবিন নামার প্রয়োজন হয় না, মনের মিল থাকলেই বিয়ে হয়। পরে সে প্রতারনার বিষয়টি বুঝতে পারে।

তবুও ওই তরুনী বিয়ে রেজিষ্ট্রেশনের জন্য সেলিমকে চাপ দিলে সে ও তার সহযোগীরা চলতি বছরের ১০ জুলাই ওই তরুনীকে মারধর করে তাড়িয়ে দিলে সে সাভার মডেল থানায় মামলা করতে আসলে পুলিশ মামলা গ্রহনে অস্বীকার করেন।

পরে সে গ্রামের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সাথে আলোচনা করে পহেলা আগষ্ট ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইবুনাল-২ এ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা (নং২০৬/১৭) করেন।
অবশেষে আদালতে নির্দেশে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ ১৪আগষ্ট মামলাটি থানায় নথিভূক্ত করেন। (মামলা নং- ৭০)।

যাত্রাবাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি তদন্তে সত্যতা পাওয়া গেছে। আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

তবে প্রতারক সেলিম আহম্মেদের সাথে মুঠফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও বিয়ের করার কথা অস্বীকার করে বিষয়টি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ না করতে তদবির করেন।

web-ad

আপনার মতামত দিন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, এই চিহিৃত ঘরটি অবশ্যই পূরণ করতে হবে *

*