প্রচ্ছদ / লীড নিউজ / আশুলিয়ার সব কারখানা খুলেছে, শান্তিপূর্নভাবে কাজে যোগদান শ্রমিকদের
home-ad-620-x-90

আশুলিয়ার সব কারখানা খুলেছে, শান্তিপূর্নভাবে কাজে যোগদান শ্রমিকদের

স্টাফ রিপোর্টার  :  ঢাকার আশুলিয়ায় অনিদিষ্ঠকালের জন্য বন্ধ সব পোশাক কারখানা খুলে দেওয়া হয়েছে। সোমবার সকালে শ্রমিকেরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কাজে যোগদান করছেন। কোথাও অসন্তোষের কোন খবর পাওয়া যায়নি।

টানা পাঁচ দিন বন্ধ থাকার পরে কারখানাগুলো খুলে দেওয়ায় শ্রমিকদের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

বেতন-ভাতা বাড়ানোর দাবিতে আশুলিয়ার বিভিন্ন কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়লে গত মঙ্গলবার বিজিএমইএ সংবাদ সম্মেলন করে ৫৫টি কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেন।

এ পরিস্থিতিতে রোববার সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান রোববার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ও ৩০টি শ্রমিক সংগঠনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে সোমবার থেকে আবারও বন্ধ কারখানাগুলো খোলার নির্দেশ দেন।

সকালে কারখানাগুলো খুলে দিলে স্বতস্ফুতভাবে শ্রমিকরা কাজে যোগদান করেন।

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান জানান, সকাল থেকে কারখানা গুলো খুলে দেওয়ার পরে শ্রমিকরা কারখানায় প্রবেশ করে উৎপাদন শুরু করেছে। যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কারখানা গুলোর সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এছাড়া র‌্যাব, বিজিবি টহল অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরো জানান, শ্রমিক অসন্তোষের ঘটনায় এ পর্যন্ত ১০টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে পুলিশ ২টি ও কারখানা কর্তৃপক্ষ ৮টি মামলা করেছে। তিনি বলেন, গামের্ন্টস শিল্প নিয়ে বিশৃঙ্খলা, ভাংচুর ও নাশকতা সৃষ্টি করেছে এমন ১৫০জনকে চিহিৃত করা হয়েছে। এপর্যন্ত শ্রমিকনেতা, সাংবাদিকসহ ২২জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শ্রমিক বরখাস্তের বিষয়ে পুলিশ সুপার জানান, সাময়ীক বরখাস্তকৃত কোন শ্রমিক যদি মনে করে তার উপর অন্যায় বা অবিচার করা হয়েছে তাহলে সে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর দরখাস্ত করলে আমরা তদন্ত করে আমরা মালিকপক্ষকে বলবো কাজে পূর্নবহাল করার জন্য। আর সত্যি সত্যি যদি কেউ ‘কালপিড’ থাকে বা আন্দোলনের ইন্দনদাতা থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এদিকে শ্রমিকদের আন্দোলনের উস্কে দেওয়ার অভিযোগে এপর্যন্ত হা-মীম গ্রুপ, ফাউন্টেন গামের্ন্টস ও উন্ডি এ্যাপারেস থেকে মোট ৩৪৭ জনকে সাময়ীক বরখাস্ত করেছে কতৃপক্ষ। গতকাল সকালে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকরা কারখানার সামনে আসলেও তারা কারখানায় প্রবেশ করতে না পেরে বাড়ি ফিরে যান।

সরজমিনে ঘুরে ঢাকা টাঙ্গাইল মহাসড়কের বাইপাইল, জামগড়া, নরসিংহপুর ও এর আশপাশের সকল পোশাক কারখানা খুলা পাওয়া যায়। উৎসবমুখর পরিবেশে শ্রমিকদের কাজে যোগদান করতেও দেখা গেছে।

শিল্প পুলিশ-১ আশুলিয়া জোনের পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সব পোশাক কারখানা খোলার পর শ্রমিকেরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কাজে যোগ দিয়েছে। কোথাও কোনো শ্রমিক অসন্তেষের ঘটনা ঘটেনি।

web-ad

আপনার মতামত দিন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, এই চিহিৃত ঘরটি অবশ্যই পূরণ করতে হবে *

*