প্রচ্ছদ / লীড নিউজ / থমথমে আশুলিয়ায় নিরাপত্তা জোরদার
home-ad-620-x-90

থমথমে আশুলিয়ায় নিরাপত্তা জোরদার

স্টাফ রিপোর্টার  :  অব্যাহত শ্রমিক অসন্তোষের মুখে অনির্দিষ্ঠকালের জন্য বন্ধ ৫৫টি পোশাক কারখানার শ্রমিকদের সড়কে জটনা না পাকানোর জন্য মাইকিং করছে পুলিশ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি।

বুধবার সকাল থেকেই ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বাইপাইল থেকে জিরাব পর্যন্ত থানা পুলিশ, শিল্প পুলিশ, আমর্ড ব্যাটেলিয়ান পুলিশ ও বর্ডারগাড বাংলাদেশ (বিজিবি)কে টহল দিতে দেখা গেছে। কিছুক্ষন পরপর সড়কে মহড়া দিচ্ছে পুলিশের রায়ট কার।

কারখানাগুলোর ফটকেও অনিদির্ষ্টকালের জন্য লেখা নোটিশ ঝুলানো রয়েছে।

পুলিশের পিকআপ ভ্যানে মাইক লাগিয়ে বন্ধ কারখানার শ্রমিকদের কোথাও জড়ো হয়ে মিছিল মিটিং থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানাচ্ছেন। এমনকি মিছিল মিটিংএর চেষ্টা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানানো হয় মাইকে।

বেতন বৃদ্ধিসহ ১৬ দফা দাবী জানিয়ে আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে কর্মবিরতীসহ অব্যাহত বিক্ষোভের মুখে মঙ্গলবার মালিকপক্ষ ৫৫টি পোশাক কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে।
বন্ধ কারখানার শ্রমিকরা যেন কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে সেই লক্ষ্যে অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি শিল্পাঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে ১০ প্লাটুন বিজিবি।
আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মহসিনুল কাদির খবর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ১০ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। তারা সড়কে টহল দিচ্ছে। কোথাও শ্রমিকরা জটলা করার চেষ্টা করলে তাদের তাড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, স্বাভাবিক রয়েছে আজকের পরিস্থিতি।

এদিকে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী কারাখানাগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হলেও সকালের দিকে অনেক শ্রমিককেই হাতে খাবারের বাটি নিয়ে কারখানায় কাজে যোগ দিতে যেতে দেখা গেছে। পরবর্তীতে তারা কারখানার মুল ফটকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের নোটিশ দেখতে পেয়ে বাড়ি ফিরে যায়।
তবে অন্যান্য কারখানাগুলোতে স্বাভাবিক ভাবে উৎপাদন চলছে বলে জানিয়েছেন ওসি মহসিনুল কাদির।
গামের্ন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক খায়রুল মামুন মিন্টু খবর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, কারখানা কর্তৃপক্ষ ও সরকারপক্ষ আমাদেরকে নিয়ে সভা করে শ্রমিকদের বুঝিয়ে কাজে ফেরানোর কথা বলার পর আমরা চেষ্টা অব্যাহত রাখি।

এমনকি মঙ্গলবার আমরা মাইকিং করে শ্রমিকদের আজ (বুধবার) কাজে যোগদানের আহব্বান জানাই। এর পর মালিকপক্ষ বিজিএমইএ ভবনের ঘোষনা করে অনিদির্ষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধ। এভাবে তো বন্ধ থাকতে পারে না। আমরা মালিক পক্ষের সাথে জরুরী আলোচনায় বসার ব্যবস্থা করছি।
শুক্র-শনি বন্ধ তাই রবিবার কারখানা খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে। এমনকি রবিবার থেকেও কারখানাগুলোতে উৎপাদন চলতে পারে -বলেন তিনি।
শিল্প পুলিশ-১ এর পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান খবর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, মালিকপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৫৫টি কারখানা বন্ধ রয়েছে। কারখানাগুলো বন্ধ রাখায় আজকের পরিস্থিতিও স্বাভাবিক। এছাড়া তিনি আরও জানান, বিশৃংখলা এড়াতে শিল্প পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি মোতায়েন রয়েছে।

প্রসঙ্গত; শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরী ৫হাজার ৩০০টাকা থেকে বৃদ্ধি করে সর্বনি¤œ মজুরী ১৬হাজার টাকার দাবীতে গত ৯দিন ধরে আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে অসন্তোষ চলে আসছিল।

web-ad

আপনার মতামত দিন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, এই চিহিৃত ঘরটি অবশ্যই পূরণ করতে হবে *

*