প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / বিপিএল চ্যাম্পিয়ন সাকিবের ঢাকা, টুর্নামেন্ট সেরা মাহমুদউল্লাহ
home-ad-620-x-90

বিপিএল চ্যাম্পিয়ন সাকিবের ঢাকা, টুর্নামেন্ট সেরা মাহমুদউল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক  :  প্রিমিয়াল লিগের (বিপিএল) ফাইনালে রাজশাহী কিংসকে ৫৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো শিরোপা জিতেছে ঢাকা। ডায়নামাইটস নামের ঢাকা অবশ্য শিরোপাজয়ের স্বাদ পেল এবারই প্রথম। বিপিএলের প্রথম দুই আসরে তারা শিরোপা জিতেছিল ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস নামে। ২০১৫ সালে নাম বদলে বিপিএলে অংশ নিলেও দলটি বিদায় নিয়েছিল এলিমিনেটর ম্যাচ থেকে।

শুক্রবার হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে টসে জয়লাভ করেন রাজশাহী কিংসের অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। তিনি প্রথমে ঢাকাকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান। ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৫৯ রান করে ঢাকা ডায়নামাইটস।

১৬০ রানের লক্ষ্য ছুঁতে গিয়ে ১৭.৩ ওভারে রাজশাহী কিংস অলআউট হয় মাত্র ১০৩ রানে। ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি রাজশাহীর। তৃতীয় ওভারে মাত্র ১৫ রানের মাথায় হারিয়ে ফেলে নুরুল হাসানের উইকেট। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ৪৭ রানের জুটি গড়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলেন মুমিনুল-সাব্বির। কিন্তু টানা দুই ওভারে দু জনকেই সাজঘরমুখী করেছে ঢাকা। দারুণ খেলতে থাকা সাব্বির ২৬ রান করে মেহেদী মারুফের থ্রোতে রান আউটের শিকার হন। পরের ওভারেই ঢাকার অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন ২৭ রান করা মুমিনুল হক।

খুব বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি জেমস ফ্রাঙ্কলিন ও অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। আউট হয়েছেন ৫ ও ৬ রান করে। ১৫তম ওভারে রাজশাহীর শেষ ভরসা সামিত প্যাটেলকে আউট করেই জয় নিশ্চিত করে ফেলে ঢাকা। ১৭ রান এসেছে প্যাটেলের ব্যাট থেকে। মুমিনুল, সাব্বির ও প্যাটেল ছাড়া রাজশাহীর অন্য কোনো ব্যাটসম্যানই পেরোতে পারেননি দুই অঙ্কের কোটা।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে এভিন লুইসের ৪৫, কুমার সাঙ্গাকারার ৩৬, ডোয়াইন ব্রাভোর ১৩, সানজামুল ইসলামের ১২ রানের ইনিংসগুলোতে ভর করে স্কোরবোর্ডে ১৫৯ রান জমা করেছিল ঢাকা ডায়নামাইটস।

ব্যাট হাতে ঢাকার শুরুটা ভালো হয়নি। ২৩ রানে ব্যক্তিগত ১২ রান করে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে আউট হন মেহেদী মারুফ। এরপর ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে পারেননি নাসির হোসেন। তিনি ৫ রান করে আফিফ হোসেনের বলে আউট হন।  এরপর ব্যক্তিগত ৫ রানে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে সাজঘরে ফেরান ড্যারেন স্যামি। তবে এভিন লুইস ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন। তিনি ৩১ বলে ৪৫ রান করে ফরহাদ রেজার বলে আউট হন। এরপর দ্রুতই সাজঘরে ফেরেন ডিজে ব্রাভো ও আন্দ্রে রাসেল।

ব্রাভো ১৩ রান করে রান আউট হন। আর রাসেলকে সামিত প্যাটেলের বলে দারুণ এক ক্যাচে প্যাভিলিয়নে পাঠান ফরহাদ রেজা। ভালো খেলার ইঙ্গিত দিয়েও ব্যর্থ ডায়ানামাইটস দলপতি সাকিব আল হাসান।

মাত্র ১২ রান করে ফরহাদ রেজার বলে বোল্ড হন এ অলরাউন্ডার। পুরো টুর্নামেন্টেই ব্যাট হাতে তেমন আলো ছড়াতে পারেননি সাকিব। সাকিবের পর দ্রুতই ফিরে যান আলাউদ্দিন বাবু। বাবু ১ রান করেন। তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে দলকে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ এনে দেন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা। সাঙ্গাকারা ৩৬ রান করে রেজার বলে আউট হন। তবে ৩৩ বলে ৩৬ রানের ইনিংস খেলে ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

বিপিএল সেরা মাহমুদউল্লাহ

ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়ে বিপিএলের চতুর্থ আসরে ‍টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার উঠেছে খুলনা টাইটানসের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে।

টুর্নামেন্ট শেষ করার আগে ১৪ ম্যাচে দুটি হাফ সেঞ্চুরিসহ ৩৯৬ রান আসে মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে। এছাড়া, পুরো টুর্নামেন্টে বল হাতে নেন ১০ উইকেট। লিগ পর্বে শেষ ওভারে বল হাতে এসে পর পর দু’টি ম্যাচে ৭ ও ৬ রান ডিফেন্ড করে খুলনাকে নাটকীয় জয় এনে দেন মাহমুদউল্লাহ।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে রাজশাহী কিংসের কাছে হেরে গেলে ফাইনালে খেলার স্বপ্ন শেষ হয়ে যায় মাহমুদউল্লাহর দল খুলনা।

web-ad

আপনার মতামত দিন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, এই চিহিৃত ঘরটি অবশ্যই পূরণ করতে হবে *

*